Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!

,
সংবাদ শিরোনাম :
«» ময়মনসিংহ বিভাগীয় প্রেসক্লাব-এর ৪র্থ প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উৎসব «» আজ ময়মনসিংহ বিভাগীয় প্রেসক্লাব-এর ৪র্থ প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী : গুণীজন সম্মাননা ‘২০১৯ পাচ্ছেন ১৩ গুণী ব্যক্তিত্ব «» অস্ত্র চাঁদাবাজিসহ একাধিক মামলার আসামি মানিক গ্রেফতার «» ডাকসু’র জিএস ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাঃ সম্পাদক রব্বানী’র জন্মদিনে বাকৃবি শাখার দৃষ্টিনন্দন আয়োজন «» কলমের স্বপ্নভঙ্গ- ৭১’এর মতো আরেকটি যুদ্ধ করতে হবে, তরুণ প্রজন্ম তৈরি থেকো- ফ্যাক্ট রোহিঙ্গা «» অক্সিজেনের ফ্যাক্টরিতে আগুন : আমাজন জঙ্গল «» পরিচ্ছন্ন নগরী চাই, ডেঙ্গু মুক্ত জীবন চাই «» ২১ আগষ্ট গ্রেনেড হামলা: এমন নৃশংস ঘটনার পুনরাবৃত্তি আর চাই না «» বিভাগীয় কমিশনার খন্দকার মোস্তাফিজুর রহমানের সাথে কিছু সময় «» রিতুকে ফিরে পাওয়ার আকুতি ; সন্ধান চাই

জেলা পুলিশের সাফল্যে সক্রিয় একজন ওসি তদন্ত খন্দকার শাকের

বিল্লাল হোসেন প্রান্ত ॥
ময়মনসিংহ কোতোয়ালী মডেল থানার ওসি তদন্ত খন্দকার শাকের আহমেদ একই থানায় ওসি তদন্ত হওয়ার আগে ছিলেন ওসি অপারেশন্স দায়িত্ব পালনে নিষ্ঠাবান। নিজ কাজে নিমগ্ন একজন নিবেদিত প্রাণ ইন্সপেক্টর। উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ যখন তার উপর যে দায়িত্ব প্রদান করেন তা পালনে সাফল্য অর্জনই তার কাজ। আর ভাল কাজের সাফল্য অর্জনে তিনি ক্রমাগত সফল। এক্ষেত্রে তিনি যেমন পুলিশ বিভাগের মূল্যায়নী পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হচ্ছেন, জনগণও তার প্রশাংসা করেন।
আর ইদানিং যখনই কোন পুলিশ জনপ্রিয় হয়ে উঠে তখনই বুঝতে হয় কোথায় কোন ষড়যন্ত্র হচ্ছে। তেমনি মহল বিশেষের টার্গেট কি এই অফিসারের প্রতিও। জনবান্ধব পুলিশের সাফল্যকে গণশত্রুরা মেনে নিতে পারেন না। অপরাধীরা সুকৌশলে কলকাটি নাড়ে। হীনমন্যরা অপব্যাখ্যা করে। এভাবেই আলোচনার সাথে সমালোচনা জুড়ে যায় পুলিশের নামের সাথে।
ওসি তদন্ত খন্দকার শাকের আহমেদ কোতোয়ালী থানায় এ পদে মাত্র ৪ মাস কর্মরত থাকা অবস্থায় মাদক বিরোধী অভিযানসহ, সামাজিক শান্তি শৃঙ্খলা রক্ষা, বিভিন্ন মামলার তদন্ত পরিচালনায় দায়িত্ব পালনে সাফল্য অর্জন করেছেন।
পুলিশী দায়িত্ব পালনে সাফল্যের স্বীকৃতি হিসেবে অসংখ্যবার উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে পুরস্কার লাভ করেন। ময়মনসিংহ রেঞ্জে ১ বার ও ময়মনসিংহ জেলায় ১ বার শ্রেষ্ঠ ইন্সপেক্টর এর পুরস্কার পান এই ৪ মাসে। এর আগে ময়মনসিংহ জেলায় ১৫ বার সেরা পুলিশ হিসাবে পুরস্কার বিজয়ী খন্দকার শাকের আহমেদ ইতিপূর্বে আইজিপি পদক লাভ করেন।
মানুষের কাছে নীতিবান পুলিশ হিসেবে তার সুনাম রয়েছে। লোভ লালসা, উৎকোচবাজী, সামারি বাণিজ্য, অনিয়ম, দুর্নীতির বিপরীতে তার অবস্থান।
পুলিশ প্রশাসনের নীতি মোতাবেক একজন জনবান্ধব পুলিশ, মানবিক পুলিশ হিসেবে ভুমিকা রাখতে তিনি আন্তরিক। আর এক্ষেত্রে মনমানসিকতা ইতিবাচক। ছাত্র জীবনেই তিনি ছিলেন দেশের একজন নামকরা স্পোর্টসম্যান। ফুটবলার হিসেবে তিনি শেখ জামাল ক্লাব, ধানমন্ডি, ব্রাদার্স ইউনিয়ন, ওয়ারি ক্লাব, পিডাব্লিওডি ক্লাব, ইয়ংম্যান ফকিরাপুল ক্লাবের হয়ে খেলেন। দক্ষ ক্রীড়াবিদ হিসেবে ছাত্রজীবনেই তিনি ৪০ লক্ষ টাকা উপার্জন করেছিলেন। হয়েছিলেন প্রশংসিত। তিনি বর্তমানে ময়মনসিংহ জেলা পুলিশের ফুটবল টিমের হয়ে খেলে থাকেন। অসংখ্য খেলায় জেলা পুলিশ ফুটবল টিমের জন্য জয় ছিনিয়ে আনতে দক্ষ খেলোয়াড় ও ক্যাপ্টেন হিসাবে তার কৃতিত্ব রয়েছে।
জাহাঙ্গীর বিশ্ববিদ্যালয়ে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে অনার্সসহ মাস্টার ডিগ্রি অর্জনের পর ২০০৬ সালে তিনি পুলিশ বাহিনীতে যোগ দেন। শিক্ষাজীবন ও ক্রীড়াজীবন থেকেই তিনি আদর্শিক মূলবোধে উজ্জীবিত। শেরপুর জেলার নকলার সন্তান খন্দকার শাকের আহমেদের সহধর্মিনী আতিকা সুলতানা আশা ময়মনসিংহ আনন্দমোহন বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের মাস্টার্স শেষ বর্ষের ছাত্রী। ইংরেজীতে অনার্সে ফাস্টক্লাস ফাস্ট হন। ২ সন্তান রয়েছে এই দম্পত্তির ।
একজন পেশাদার পুলিশ অফিসার হিসেবে ওসি তদন্ত খন্দকার শাকের আহমেদ উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশ পালনের মাধ্যমে দায়িত্বশীলতা ও নিষ্ঠার ক্ষেত্রে সাফল্যের যে নিদর্শন রাখছেন তা এক কথায় অনস্বীকার্য।
তার সাফল্যের অনেক গল্পই পুলিশী কিংবদন্তী। সামাজিক বিরোধ নিষ্পত্তির ক্ষেত্রে যে সব মামলার দায়িত্ব তার উপর বর্তে সেখানে তিনি বিচক্ষনতা ও সততার নজির রাখায় আলোচিত। তিনি ময়মনসিংহ জেলায় আসার আগে পুলিশ উপপরিদর্শক থাকা অবস্থায় জামালপুরে ট্রেন ডাকাত চক্রের চাঞ্চল্যকর এর গ্রুপ হত্যাকান্ডের রহস্য উন্মোচন করে সারা দেশে আলোচিত হয়েছিলেন। সে সময় ময়মনসিংহ পুলিশ খন্দকার শাকেরকে নিয়ে গৌরব করে উদাহরন টানতেন অনেক গল্পে।
বিরোধ নিষ্পত্তিতে থানায় দেন দরবারের মাধ্যমে সমস্যার সমাধানে পুলিশী ভূমিকা গ্রহণযোগ্যতা ও প্রশংসা পাচ্ছে। এক্ষেত্রে কোতোয়ালী থানায় তার ভুমিকায় মানুষ সন্তুষ্ট। তবে এই ক্ষেত্রে তার সমালোচনা আছে। ‘‘তিনি টাকা পয়সা খেতে পারেন না।’’ প্রভাবশালী বা অপরধীরা তাকে ম্যানেজ করতে ব্যর্থ। আর এজন্যই মহল বিশেষ তার বিপক্ষে সমালোচনায় মুখর।
দেখা যাচ্ছে দক্ষতা ও সাফল্যের জন্য আলোচিত পুলিশ মহল বিশেষের টাগের্টে পরিনত হওয়ার মাত্রা বাড়ছে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial