,
সংবাদ শিরোনাম :

মমেক হাসপাতালে ছাত্রলীগ সভাপতির নেতৃত্বে হামলা আহত ৭

বিল্লাল হোসেন প্রান্ত ॥
ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ডেন্টাল ২০১৮-১৯ সেশনে শিক্ষার্থী ভর্তিকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের দুগ্রুপের সংর্ঘষে ৭ শিক্ষার্থী আহত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। আহতদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।অভিযোগ উঠেছে মমেক ছাত্রলীগ সভাপতি তুষারের নেতৃত্বে এ হামলা হয়েছে।

২০ নভেম্বর মঙ্লবার সকাল ১০ টায় ডেন্টাল সেশনে নতুন শিক্ষার্থীদের ভর্তিতে মমেক ছাত্রলীগ সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রিদমের নেতৃত্ব সহায়তা করার সময় এ হামলা চালানো হয়।

এ ঘটনায় তাৎক্ষনিক বিচার দাবি করে মমেক ছাত্রলীগ বিক্ষোভ মিছিল করে। বিক্ষোভ মিছিল থেকে মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত ছাত্রলীগ কর্মী মুনতাসির রাতুল বলেন, আমরা ডেন্টালে ভর্তিচ্ছুক শিক্ষার্থীদের সহায়তা করছিলাম অতর্কিত আমাদের উপর হামলা চালায়। রড দিয়ে এলোপাথাড়ি পিটিয়ে, টায়েল্স দিয়ে মাথায় আঘাত করে মাথা ফাটিয়ে দেয়া হয়েছে।

 

ছাত্রলীগ কর্মী অনুপম সাহা বলেন,মমেক হাসপাতালে ডেন্টালে ভর্তিচ্ছুক শিক্ষার্থীদের ভর্তিকাজে সহায়তা করার সময় ছাত্রলীগ সভাপতি তুষারের নেতৃত্বে তার ক্যাডার বাহিনী হামলা করেছে। এ ঘটনা নতুন নয়। এর আগেও অনেকবার তার নেতৃত্বে সাধারণ শিকার্থীদের উপর হামলা হয়েছে। কিন্তু তাদের ব্যাপারে কোন আইনী ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। এটা দু:খজনক।

এ বিষয়ে মমেক ছাত্রলীগ সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শামস আবরার রিদম লিখিত অভিযোগে জানান, জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি মো: রকিবুল ইসলাম রকিব এর অনুসারী মমেক ছাত্রলীগ সভাপতি তুষার ও তার ক্যাডার বাহিনী গ্রুপ বিভাজন ও আধিপত্য বিস্তার করতে আমার অনুসারীদের উপর অতর্কিত হামলা চালিয়েছে।

এ হামলায় বিডিএস-৫ ব্যাচের শিক্ষার্থী ছাত্রলীগ কর্মী সঞ্জীব সরকার বেনাস, এম -৫৪ ব্যাচের প্রতীক বিশ্বাস, বিডিএস-৭ ব্যাচের শিক্ষার্থী ছাত্রলীগ কর্মী মুনতাসির রাতুল, এম-৫৪ ব্যাচের আশফাক কবির প্রহর, ওমর ফারুক সাগর, রবিউলসহ ৭/৮জন ছাত্রলীগ কর্মী আহত হয়েছেন। তিনি বলেন, এ ঘটনা এই প্রথম নয়। তাদের ক্যাডার বাহিনী দ্বারা প্রতিনিয়তই সাধারণ শিক্ষার্থীসহ ছাত্রলীগ কর্মীরা নির্যঅতনের শিকার হচ্ছে। এতে সাধারণ শিক্ষার্থীদের কাছে ছাত্রলীগের অবস্থান প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে। এটা সত্যিই দু:খজনক। তিনি বলেন, এ ব্যাপারে প্রশানসের নির্লিপ্ত ভ’মিকা সাধারণ ছাত্রলীগের কাছে উদ্বেগের কারন হয়ে দাড়িয়েছে।

 

এ বিষয়ে জানতে মমেক ছাত্রলীগ সভাপতিকে প্রশ্ন করা হয়ে তিনি নিজের জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করেন। ছাত্রলীগ কর্মী মাথা ফেটে আহত হওয়ার বিষয়টি কিভাবে দেখছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, নিজেদের মধ্যে একটু মনমানিল্য হয়েছে , এটা তেমন কিছু নয়।
অভিযোগ রয়েছে ইতিপুর্বেও মমেক ছাত্রলীগ সভাপতি তুষারের নেতৃত্বে ক্যাম্পাসের বাইরে গিয়ে স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ মহাসচিব ডা. এম এ আজিজ এর বাসভবনে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial