Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!

,
সংবাদ শিরোনাম :
«» ময়মনসিংহ বিভাগীয় প্রেসক্লাব-এর ৪র্থ প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উৎসব «» আজ ময়মনসিংহ বিভাগীয় প্রেসক্লাব-এর ৪র্থ প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী : গুণীজন সম্মাননা ‘২০১৯ পাচ্ছেন ১৩ গুণী ব্যক্তিত্ব «» অস্ত্র চাঁদাবাজিসহ একাধিক মামলার আসামি মানিক গ্রেফতার «» ডাকসু’র জিএস ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাঃ সম্পাদক রব্বানী’র জন্মদিনে বাকৃবি শাখার দৃষ্টিনন্দন আয়োজন «» কলমের স্বপ্নভঙ্গ- ৭১’এর মতো আরেকটি যুদ্ধ করতে হবে, তরুণ প্রজন্ম তৈরি থেকো- ফ্যাক্ট রোহিঙ্গা «» অক্সিজেনের ফ্যাক্টরিতে আগুন : আমাজন জঙ্গল «» পরিচ্ছন্ন নগরী চাই, ডেঙ্গু মুক্ত জীবন চাই «» ২১ আগষ্ট গ্রেনেড হামলা: এমন নৃশংস ঘটনার পুনরাবৃত্তি আর চাই না «» বিভাগীয় কমিশনার খন্দকার মোস্তাফিজুর রহমানের সাথে কিছু সময় «» রিতুকে ফিরে পাওয়ার আকুতি ; সন্ধান চাই

মসিক নির্বাচনে বিএনপি, জাপা প্রার্থীরাও সুবিধাজনক অবস্থানে

মাটি ও মানুষ রিপোর্ট ঃ
ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে আওয়ামীলীগ লড়ছে আওয়ামী লীগের বিপক্ষে। আবার অনেকে বিএনপি, জাপা প্রার্থীর পক্ষেও আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীরা মাঠে নেমেছেন।

 

দলীয় সমর্থনের বাইরে সবার জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া এই নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ত্যাগী নেতারা রয়েছেন চাপের মুখে। ফলে সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছেন সরকার বিরোধী শিবিরের কাউন্সিলর প্রার্থীরা। চলছে নীরব টাকার খেলা। সেই সাথে প্রার্থী বিশেষকে পাশ করানোর জন্য প্রভাবশালী মহলের কৌশল।

 

 

এই সুযোগে বেশ কিছু প্রার্থী নিজেদেরকে কোন কোন আওয়ামী লীগ নেতার প্রার্থী বলে মাঠে প্রচারও করেন। এতে জনমনে প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়। পরিস্থিতি এতদুর পর্যন্ত গড়ায় যে, কোন কোন নেতা ইতোমধ্যে ফেসবুকে বিবৃতি দিয়ে তাদের সমর্থনের কথা অস্বীকার করেছেন।

 

 

এদিকে, অস্বীকার করা হলেও কোন কোন নেতা প্রার্থী বিশেষের পক্ষে প্রকাশ্য বা নেপথ্যে ভুমিকা রাখছেন।

মহানগর নির্বাচনে ৩৩ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর ও ১১টি সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ডে ভোট গ্রহণ করা হবে ৫ মে। ইভএম পদ্ধতিতে প্রথম মহানগর নির্বাচন হবে।

 

 

বিএনপি মহানগর নির্বাচনে অংশ নেয়নি। মেয়র পদে দলটির কোন প্রার্থী স্বতন্ত্র হয়েও আসেননি। বরং জেলা বিএনপি সিদ্ধান্ত নিয়েছে ময়মনসিংহ মহানগহর নির্বাচনে ভোট বর্জনই হবে বিএনপির প্রতিবাদ।

 

 

এদিকে বিএনপি ভোট বর্জনের সিদ্ধান্ত নিলেও বিলুপ্ত পৌরসভার বিএনপি পন্থী সাবেক কাউন্সিলররা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আছেন। তারা দলীয় পরিচিতির বিষয়টি চেপে যাচ্ছেন। এদের অন্ততঃ ৭ জন প্রার্থী বিজয়ী হতে পারেন। এক্ষেত্রে আওয়ামী লীগের ভোট ব্যাংককে হানা দিতে টাকা ছাড়নোসহ স্থানীয় একাধিক নেতাকে ম্যানেজ করেছেন।

 

 

এদিকে আওয়ামী লীগের ত্যাগী নেতাদের বিরুদ্ধে সদ্য প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে না আওয়ামী লীগ ভোটারদের মধ্যে বিভাজন চলছে। শুধু কাউন্সিলর নয় মহিলা কাউন্সিলর পদে আওয়ামীলীগের প্রতিশ্রুতিশীল, ত্যাগী নেতারা চাপের মধ্যে আছেন। জাতীয় পার্টির অন্ততঃ ৩ জন হেভিয়েট কাউন্সিরল প্রার্থী সম্ভাবনায় রয়েছেন।

 

 

ছাত্রদলের নেতা তার মাকে কাউন্সিলর করতে আওয়ামী লীগ কর্মীদের সাথে নিয়ে কাজ করছেন। মসিক নির্বাচনে ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের অনেক ত্যাগী নেতা ভোটযুদ্ধে ছিটকে যেতে পারেন। আওয়ামী লীগের ভোটে একাধিক বিএনপি, জাপামনা প্রার্থীরা জয়ী হতে পারে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial