Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!

,
সংবাদ শিরোনাম :
«» দেশের কৃষিশিক্ষা ও গবেষণার সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ বাকৃবিতে ইভটিজিং, সাময়িক বহিষ্কার চার শিক্ষার্থী «» শহীদ মুক্তিযোদ্ধা নুরুলের ১০৫ বছর বয়সী মায়ের শেষ ইচ্ছা প্রধানমন্ত্রীর স্বাক্ষাৎ «» সাংবাদিক দারা উদ্দিন দারা সড়ক দূর্ঘটনায় গুরুতর আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি «» আখেরি মোনাজাতে অংশ নিতে তুরাগতীরে লাখো মুসল্লি «» না ফেরার দেশে বগুড়া-১ আসনের এমপি আব্দুল মান্নান «» ডিআইজি ব্যারিস্টার মোঃ হারুন-অর-রশিদের সাথে ময়মনসিংহ বিভাগীয় প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দের সৌজন্য সাক্ষাৎ ও মতবিনিময় «» কবি ও কথাসাহিত্যিক মুশাররাফ করিমের মৃত্যুতে ময়মনসিংহ বিভাগীয় প্রেসক্লাব-এর সভাপতির শোক প্রকাশ «» বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব অধ্যক্ষ মতিউর রহমান বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য হলেন «» ঢাবি’র ছাত্রী ধর্ষণকারী গ্রেফতার মজনু ‘সিরিয়াল রেপিস্ট’: র‌্যাব «» ইরানে ইউক্রেনের উড়োজাহাজ বিধ্বস্ত, ক্রুসহ ১৮০ আরোহী নিহত

সারা দেশে চলছে অঘোষিত পরিবহন ধর্মঘট, জনদুর্ভোগ চরমে

শরাফত আলী শান্ত: নতুন সড়ক পরিবহন আইনের প্রতিবাদে সারা দেশে অঘোষিত পরিবহন ধর্মঘট করছেন শ্রমিকরা। ধর্মঘটের জন্য বিভিন্ন সড়কে পণ্যবাহী গাড়ি ও গণপরিবহন চলাচল করছে না। পাশাপাশি প্রাইভেটকার চলাচলেও বাধা দিচ্ছে পরিবহন শ্রমিকরা।

 

শুরুতেই পরিবহন শ্রমিকদের কর্মবিরতি ছিল দেশের দক্ষিণাঞ্চলের ১৪ জেলায়। গতকাল মঙ্গলবার (১৯ নভেম্বর) তা ছড়িয়ে পড়ে  দেশের ২০ জেলায়। শ্রমিকদের এ কর্মবিরতি ছিল যাত্রীবাহী বাসের ক্ষেত্রে। আজ বুধবার (২০ নভেম্বরা) থেকে এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে সারা দেশে পণ্য পরিবহন ধর্মঘট।

 

দেশের বিভিন্ন স্থানে যাত্রীবাহী বাস চলাচল বন্ধ থাকায় মানুষের দুর্ভোগ চরমে উঠেছে। রাজশাহী ও সিলেট বিভাগের কয়েকটি জেলা ছাড়া প্রায় সারা দেশেই বন্ধ রয়েছে বাস চলাচল। কোনও কোনও জেলায় বাস চালানোর চেষ্টা করলেও তা আটকে দিচ্ছে পরিবহন শ্রমিকরা। ট্রাক-কাভার্ড ভ্যান ধর্মঘটে বাজারে পণ্য সরবরাহ কমে গেছে। আশঙ্কা দেখা দিয়েছে জিনিসপত্রের দাম বৃদ্ধির।

 

সকাল থেকেই নারায়ণগঞ্জের সাইনবোর্ড, সিদ্ধিরগঞ্জের শিমরাইল, কাঁচপুরসহ ঢাকা-সিলেট ও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের বিভিন্নস্থানে অবস্থান নিয়েছেন পরিবহন শ্রমিকরা। তারা সড়কে যানবাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছেন। অনেক স্থানে রাস্তার ওপর রাখা হয়েছে বড় বড় যানবাহন। ফলে রাস্তা কার্যত বন্ধ হয়ে গেছে।

 

নারায়ণগঞ্জের পরিবহন শ্রমিকরা ঢাকার অংশে যানবাহন প্রবেশ ও এখান থেকে বের হওয়া বন্ধ করে দিয়েছে। গাড়ির মালিকরা  বলছেন, মূলত এটি শ্রমিকদের পক্ষ থেকে ধর্মঘট। এখানে মালিকপক্ষের কোনো কিছু নেই।

 

ধর্মঘটে বেনাপোলসহ বন্দরসমূহের অচল অবস্থা

 

যশোর জেলা পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়ন, বাস ও ট্রাক মালিক সমিতির ডাকে যশোরের ১৮টি রুটে শ্রমিক ধর্মঘটের কারণে চতুর্থ দিনের মতো আজ বুধবার ট্রাক চলাচল বন্ধ রয়েছে। এ কারণে বেনাপোল বন্দরে আমদানিকৃত পণ্য লোড-আনলোড কার্যত বন্ধ রয়েছে।

 

তবে এ সময় বেনাপোল বন্দরে ভারতীয় ট্রাক হতে পণ্য আনলোডসহ দু‘দেশের মধ্যে আমদানি-রফতানি বাণিজ্য সচল রয়েছে। আমদানিকৃত-পণ্য পরিবহনের জন্য পর্যাপ্ত ট্রাক না পাওয়াই বিপাকে পড়েছেন ট্রান্সপোর্ট ব্যবসায়ীরা।

 

বাস ও ট্রাক মালিক সমিতি হঠাৎ করে যশোরের ১৮টি রুটে শ্রমিক ধর্মঘট ডাকায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বেনাপোল ট্রান্সর্পোট মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দ। কিছু কিছু পণ্যবোঝাই ট্রাক বন্দর এলাকা ছেড়ে গেলেও পথের মধ্যে আটকে দিচ্ছেন বিক্ষুব্ধ ট্রাক শ্রমিকরা।

 

ফলে বন্দর এলাকায় ট্রাক থাকলেও ভয়ে পণ্য পরিবহন করতে রাজি হচ্ছেন না সংশ্লিষ্ট ট্রাক ড্রাইভাররা। এতে বেনাপোল বন্দরে তৈরি হচ্ছে ভয়াবহ পণ্যজট।

 

জানা গেছে, গতকাল রাতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খানের বাসায় তার সঙ্গে বৈঠকে বসেন পরিবহন নেতারা। তবে সমঝোতা হয়নি। পণ্যবাহী যান চলাচল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসেননি তারা। সমাধান খুঁজতে একই স্থানে আজ সন্ধ্যায় আবার বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে।

 

বিধিমালা প্রণয়ন না করেই গত ১ নভেম্বর থেকে কার্যকর করা হয় বহুল আলোচিত সড়ক পরিবহন আইন। গত বছর নিরাপদ সড়কের দাবিতে দেশব্যাপী নজিরবিহীন আন্দোলনের ফলে করা হয় এ আইন। আইনে ট্রাফিক নিয়ম ভঙ্গে জরিমানা বেড়েছে হাজার গুণ পর্যন্ত। বেড়েছে কারাদণ্ডও। পরিবহন মালিক, শ্রমিকরা এতে অসন্তুষ্ট। তারা আইনটিকে কঠোর আখ্যা দিয়ে সংশোধনের দাবি করে আসছেন। গত রোববার থেকে নতুন আইন প্রয়োগ শুরুর পরদিন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ঘোষণা দেন, কোনো চাপে পিছু হটবেন না। এই ঘোষণার ২৪ ঘণ্টা পার না হতেই ধর্মঘটের ডাক আসে।

 

বিভিন্ন জেলায় বাস চলাচল বন্ধ রাখার পর গতকাল মঙ্গলবার সারা দেশে ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান, লরিসহ পণ্য পরিবহনের যান বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়েছে বাংলাদেশ ট্রাক-কাভার্ড ভ্যান পণ্য পরিবহন মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ। গতকাল সকালে রাজধানীর তেজগাঁওয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে পরিষদের আহ্বায়ক মো. রুস্তম আলী খান নতুন আইন স্থগিত রাখাসহ ৯টি দাবিতে আজ বুধবার থেকে অনির্দিষ্টকালের এ কর্মবিরতি চলছে।

 

পণ্যবাহী পরিবহনের ধর্মঘট শুরু হলে পণ্য পরিবহন বাধার মুখে পড়বে ও নিত্যপণ্যের দাম বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্টরা। পরিষদের নেতারা বলছেন, হালকা লাইসেন্স দিয়ে ভারী গাড়ি চালানো যায় না। ভারী গাড়ি চালানোর জন্য বিআরটিএ লাইসেন্স দিচ্ছে না। হালকা লাইসেন্স দিয়ে ভারী গাড়ি চালাতে গেলে জরিমানা করা হচ্ছে ২৫ হাজার টাকা। এ জরিমানা একজন চালক কিভাবে দেবেন- তাই তাঁরা গাড়ি চালাবেন না। নতুন আইনে চালকের লাইসেন্সের পয়েন্ট কাটা হবে। এ আইন বাংলাদেশে চলে না।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial