,
সংবাদ শিরোনাম :
«» এক বহুরূপী সাহেদ আলোচনায়, বাকীরা কোথায়? «» ধোবাউড়ায় অস্বাস্থ্যকর ও নোংরা পরিবেশে তৈরী হচ্ছে বেকারি পন্য «» দুর্গাপুরের সারে ৩ বছর যাবত শিকলবন্দি বৃদ্ধ ফুল মিয়া «» ফুঁসে উঠেছে তিস্তা, একদিনেই পানি বেড়েছে ৪৭ সেমি «» করোনা শনাক্তে প্রতারণায় কঠোর অবস্থানে সরকার: সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী «» পাপুল কুয়েতের নাগরিক প্রমাণিত হলে তাঁর আসন শূন্য হবে: সংসদে প্রধানমন্ত্রী «» মা যখন চাঁদের বুড়ি- সন্তান তখন কাঠবিড়ালী «» দুর্গাপুরে বেড়েগেছে অবৈধ লড়ি- ট্রাক্টরের দৌরাত্ব- ব্যবস্থা নেওয়ার দাবী «» উত্তর মেসিডোনিয়ায় ১৪৪ বাংলাদেশিসহ ২১১ জন অভিবাসন প্রত্যাশীকে উদ্ধার «» বান্দরবানে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে ৬ জন নিহত

লাদাখে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে ২০ ভারতীয় সেনা নিহত

শরাফত আলী শান্ত: লাদাখে চীনের সেনাদের সঙ্গে সংঘর্ষে নিহত ভারতীয় সেনার সংখ্যা ২০ জন বলে জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলো। এর আগে সংঘর্ষে তিন জন সেনাসদস্যের নিহত হওয়ার খবর নিশ্চিত করা হয়েছিল।

 

এখন বলা হচ্ছে, গতকাল সোমবার দিবাগত রাতে ওই সংঘর্ষে ২০ জন ভারতীয় সেনাসদস্য নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে একজন কর্নেল পদমর্যাদার রয়েছেন।

 

হতাহতের বিষয়টি ভারতীয় সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে স্বীকার করে দাবি করা হয়, চীনেরও বেশ কয়েকজন সেনা হতাহত হয়েছে। সংবাদমাধ্যম ভারতের এনএআই সূত্রের বরাত দিয়ে বলেছে, চীনের অন্তত ৪৩ সেনা হতাহত হয়েছে। তবে চীন এ দাবি প্রত্যাখ্যান করেছে। উত্তেজনা নিরসনে চীনের সঙ্গে এরই মধ্যে আলোচনা শুরু হয়েছে বলে ভারতের এক সেনা গতকাল নিশ্চিত করেছেন।

 

চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ঝাও লিজিয়ান ভারতের প্রতি একতরফা পদক্ষেপ গ্রহণ করে পরিস্থিতিকে আরো সংকটের দিকে ঠেলে না দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি দাবি করেন, গত সোমবার ভারতের সেনারা দুই দফা সীমান্ত অতিক্রম করে চীনের অংশে প্রবেশ করে। এ সময় দুই দেশের সেনারা হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়ে। চীনের গ্লোবাল টাইমস পত্রিকায় জানানো হয়, সংঘাতের জন্য ভারতীয় সেনারা দায়ী।

 

পরমাণু শক্তিধর এ দুটি দেশের মধ্যে বেশ কয়েক দিন ধরেই লাদাখ সীমান্তে উত্তেজনা চলছিল। তবে গোলাগুলির কথা গত চার দশকে শোনা যায়নি। ভারতের গণমাধ্যমে সম্প্রতি বারবারই উভয় পক্ষের মধ্যে সফল আলোচনা এবং উত্তেজনা প্রশমনের কথা জোর দিয়ে বলা হচ্ছিল।

 

ভারতীয় সেনার পক্ষ থেকে গতকাল রাতে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘গলওয়ান উপত্যকায় (লাদাখের) উত্তেজনা কমানোর চেষ্টা চলাকালীনই গতকাল (সোমবার) রাতে হঠাৎ সংঘর্ষ বাধে। তাতে ভারতীয় সেনাবাহিনীর এক কর্মকর্তাসহ ২০ সেনার মৃত্যু হয়েছে। দুই পক্ষের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তারা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বৈঠক করছেন।’ এর আগে তারা এক বিবৃতিতে এক সেনা কর্মকর্তা ও দুই সদস্যের মৃত্যুর কথা জানিয়েছিল। তবে ঠিক কী কারণে রাতের অন্ধকারে দুই পক্ষের সংঘর্ষ শুরু হলো, তা নিয়ে কিছু জানায়নি ভারতের সেনা বা প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়। ঘটনার পরেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে পরিস্থিতি সম্পর্কে অবহিত করা হয়। প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং, পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর এবং চিফ অব ডিফেন্স স্টাফ (সিডিএস) জেনারেল বিপিন রাওয়াত গতকাল দুপুরে স্থল, নৌ ও বায়ুসেনার প্রধানদের সঙ্গে বৈঠকে পরিস্থিতি পর্যালোচনা করেন।

 

ভারত–চীন সীমান্তের দৈর্ঘ্য প্রায় সাড়ে ৩ হাজার কিলোমিটার। দীর্ঘ এই সীমান্তে কাশ্মীরের লাদাখ ও অরুণাচল প্রদেশের কিছু এলাকা সময় সময় উত্তপ্ত হয়। লাদাখের গলওয়ান এমনই এক বিতর্কিত অঞ্চল। মে মাসের শুরুতে এই এলাকার গলওয়ান উপত্যকা, প্যাংগং লেক ও সিকিমের নাকু লায় দুই দেশের বাহিনীর মধ্যে উত্তেজনা ছড়ায়। ভারতের অভিযোগ, গলওয়ানে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা পেরিয়ে কয়েক কিলোমিটার ভারতীয় জমিতে এসে চীনা ফৌজ একাধিক ছাউনি গড়ে তোলে। খবর পেয়ে তাদেরই মুখোমুখি হয় ভারতীয় সেনা। এই নিয়ে দুই পক্ষে প্রায়ই হাতাহাতি হতে থাকে। হাতাহাতি হয় প্যংগং লেকে টহলদারি নিয়েও। স্থানীয় সামরিক কর্তাদের দৌত্য বিফলে গেলে জুন মাসের গোড়ায় উত্তেজনা প্রশমনে দুই পক্ষ মেজর জেনারেল পর্যায়ের আলোচনা শুরু করে। এতে কিছুটা কাজ হলেও গলওয়ান অঞ্চলের উত্তেজনা যে কমেনি তা সোমবারের ঘটনায় প্রমানিত।

 

গত কয়েক বছর ধরে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর ভারত বিভিন্ন ধরনের সামরিক অবকাঠামো তৈরিতে মন দিয়েছে। লাদাখের রাজধানী লেহ্ থেকে দৌলত বেগ ওলডি বায়ু সেনা ঘাঁটি পর্যন্ত ২৫৫ কিলোমিটার রাস্তা চীনের চক্ষুশূল। দৌলত বেগ ওলডি বায়ু সেনা ঘাঁটি গত অক্টোবরে উদ্বোধন হয়। প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর এই রাস্তা ও বায়ু সেনা ঘাঁটি সামরিক দিক থেকে ভারতকে অনেক সুবিধাজনক অবস্থায় নিয়ে এসেছে। এ ছাড়া চীন সীমান্ত বরাবর ভারত মোট ৬৬টি রাস্তার দিকে নজর দিয়েছে। এগুলোর কিছু নতুন, কিছু রাস্তা সংস্কার করা হচ্ছে। নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর বিভিন্ন অবকাঠামো তৈরিতে চীন তাই বারবার বাধা দেয়। লাদাখের গলওয়ান উপত্যকা অশান্ত রাখাটা তাদের সামরিক কৌশল।

 

চীনের সঙ্গে ভারতের সীমান্ত বিরোধ নতুন নয়। সম্প্রতি নেপালের সঙ্গেও ভারত সীমান্ত বিবাদে জড়িয়েছে। উত্তরাখন্ডে ভারত, চীন ও নেপাল সীমান্তবর্তী কালাপানি, লিপুলেখ ও লিম্পিয়াধুরার ৩৩৫ বর্গ কিলোমিটার এলাকা নেপাল তার নতুন ম্যাপের অন্তর্ভুক্ত করেছে। এই নিয়ে ভারত অস্বস্তিতে। ভারতের নীতি নির্ধারকদের একাংশের ধারণা, নেপালকে আগ্রাসী করে তুলতে চীন মদদ দিচ্ছে। সূত্র : বিবিসি, এএফপি।

 

 

সূত্র : বিবিসি, এএফপি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial