,
সংবাদ শিরোনাম :
«» বরেণ্য অভিনেতা আলী যাকেরের মৃত্যুতে বিরোধীদলীয় নেতার শোক «» মানববন্ধনে ডাঃ মুশফিকুর রহমান শুভ বালিকা উচ্চবিদ্যালয় পুনরায় চালুর জোরালো দাবি নগরবাসীর «» সাবেক ডেপুটি স্পিকার কর্নেল (অব.) শওকত আলীর মৃত্যুতে বিরোধীদলীয় নেতার শোক «» অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী-শিশুকন্যা হত্যা, আসামির ফাঁসি কার্যকর «» নতুন ইতিহাস নাকি চমক, অনিশ্চয়তার দ্বারপ্রান্তে যুক্তরাষ্ট্র «» সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮ এর পূর্ণ বাস্তবায়নের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন «» ‘আমরা যুদ্ধ চাই না, তবে আক্রান্ত হলে মোকাবেলার শক্তি অর্জন করতে চাই’- প্রধানমন্ত্রী «» ময়মনসিংহে যুবদলের ৪২ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত «» জাতীয় সংসদ ও ওআইসিতে ফ্রান্সের বিরুদ্ধে নিন্দা প্রস্তাব আনার দাবি চরমোনাই পীরের «» রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় আদালতে অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ আসামি, রায় দুপুরে

উপদেশ নয়, মত প্রকাশ

একেএম ফখরুল আলম বাপ্পী চৌধুরী: আজকে দাড়িয়ে আগামীকালের ভাবনা আধুনিকতা। সময়ের সাথে যেখানে যেমন, ঠিক সেরকম পদক্ষেপ নেওয়া বিচক্ষণতা।
সূদুরপ্রশারী ও দীর্ঘস্থায়ীত্ব অবকাঠামো গঠনের জন্যে প্রয়োজন নিস্বার্থ পদক্ষেপ।
পরিবেশ বান্ধব সার্বিক উন্নয়নের জন্যে প্রয়োজন প্রযুক্তিগত সঠিক তথ্য ব্যবহার করে সমষ্টিগত মতামত, প্রস্তাব, সার্বিক সম্মতি, প্রকল্প প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন।
আত্মকেন্দ্রিক না হয়ে, দায়বদ্ধতা ছড়িয়ে দেওয়া জনবান্ধব নেতার প্রধান বৈশিষ্ট্য।
মুষ্টিময় কয়েকজন লোকের মতামতকে প্রাধান্য দেওয়া জনপ্রতিনিধিত্ব নয়, সার্বিক জনগণের মতামতকে প্রাধান্য দেওয়া জনপ্রতিনিধিত্ব, জনপ্রতিনিধিত্ব করতে গেলে জনগণ কি চাই জানতে হবে, মানতে হবে।
প্রসঙ্গ ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ইকরামুল হক টিটু আপনাকেই বলছি,- উপদেশ নয় মত প্রকাশ ।
উপরের বৈশিষ্ট্যগুলি আপনার মাঝে বিদ্যমান থাকলেও ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের বিশাল বাজেটের কাছে পরিকল্পিত অগ্রসর উন্নয়ন দৃশ্যমান নয়, উন্নয়নের চাকা যেন একই বৃত্তে ঘুরছে।
জনগণ বাজেট জানতে চায়, ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের প্রতিটি উন্নয়ন প্রকল্পের বরাদ্দকৃত বাজেট অনুযায়ী প্রকল্পগুলোর বাস্তবায়নের দৃশ্যমান অগ্রগতি, বাজেট অনুযায়ী প্রকল্প বাস্তবায়ন ফারাক। জনগণকে অবগতি করা লক্ষ্যে জনসম্মুখে বা গণমাধ্যমে প্রকাশ করা একজন দক্ষ-যোগ্য ও সৎ জনপ্রতিনিধির বৈশিষ্ট্য। জনগণ জানবে গণমাধ্যম থেকে, আজ গণমাধ্যম কর্মীরাই অপেক্ষমান।
একজন নাগরিক হিসেবে একটি সমস্যা নিয়ে আলোচনা করা যেতেই পারে। ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের ড্রেন গুলো ব্যবহৃত পলিথিন ফেলার জন্যেই কি তৈরি ?
সমাধান: আবারো বলছি উপদেশ নয়, নাগরিক হিসেবে মত প্রকাশ। ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের আওতাধীন প্রতিটি ভবন, দোকান, প্রতিষ্ঠান গুলোর সামনে পলিথিন ঝুড়ি বাধ্যতামূলক করা হলে, সিটি কর্পোরেশনের নির্ধারিত দৈনন্দিন পরিচ্ছন্ন লেবার থেকে পরিমিত সংখ্যক পরিচ্ছন্ন কর্মী দিয়ে নিষিদ্ধ পলিথিন ইউনিট তৈরি করে, দিন শেষে পলিথিনগুলি ঝুড়ি থেকে নির্দিষ্ট স্থানে, উন্নত বিশ্বের ন্যায় প্রক্রিয়াগত কাজে ব্যবহার করার জন্যে প্ল্যান স্থাপন করা।
উপরোল্লেখিত ছবিগুলো থেকে একটি ধারণা নেওয়া যেতে পারে। ধন্যবাদ জননন্দিত মেয়র মহোদয়কে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial